সুস্বাস্থ্যের জন্য আয়ুর্বেদ: একটি সম্পূর্ণ ডায়েট প্ল্যান

আয়ুর্বেদ শাস্ত্র বিশ্বাস করে যে ভালো স্বাস্থ সঠিক হজমশক্তির ওপর নির্ভর করে। আমাদের শরীর এর চাহিদা অনুযায়ী খাবার খেলে আমাদের শরীর এর ভারসাম্য ও সক্রিয়তা বজায় থাকে।

एनडीटीवी  |  Updated: May 17, 2018 14:04 IST

Reddit
Ayurveda For Health: A Complete Dietary Guide To Healthy Living
Highlights
  • Ayurveda, our ancient system of medicine, is a science for life
  • We get the maximum nutrients from seasonal locally grown foods
  • Colour your plate deep blue, purple, red, green, or orange

প্রাচীন আয়ুর্বেদ শাস্ত্র একটি বিজ্ঞান যা আমাদের সর্বদা সক্রিয় থাকতে সাহায্য করে। আয়ুর্বেদ শাস্ত্র বিশ্বাস করে যে ভালো স্বাস্থ সঠিক হজমশক্তির ওপর নির্ভর করে। আমাদের শরীর এর চাহিদা অনুযায়ী খাবার খেলে আমাদের শরীর এর ভারসাম্য ও সক্রিয়তা বজায় থাকে।

যেহেতু আমরা প্রকৃতির একটি অংশ তাই আমাদের মধ্যেও তিনটি জরুরি প্রাকৃতিক শক্তি ভাতা (পবন), পিত্ত (আগুন), কপা (মাটি) উপস্থিত আছে পরিমান মত এবং আমাদের খাবারের চাহিদাও অনেকটা এগুলির দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় | আয়ুর্বেদ মনে করে না যে একই জিনিস সবার ওপর একই প্রভাব ফেলে ।


কিছু নিয়ম

1. আমরা খুব ভালো পুষ্টি পেতে পারি তাজা মরশুমি সবজির থেকে এবং সেটা প্রক্রিয়াজাত খাবার এর থেকে অনেক বেশি। অর্গানিক সবজি খাওয়া উপকারী।

2. আমাদের প্রতিবারের খাবারে 6 রকম আয়ুর্বেদিক স্বাদ যেমন মিষ্টি,টক,নোনতা,তেতো ,ঝাঁঝালো ,কষাটে উপস্থিত থাকলে আমাদের খাবারটি একটি ব্যালান্সড মিল হিসেবে ধরা হবে।

3. বেগুনি, নীল, লাল,সবুজ,কমলা রঙের ফল ও সবজিতে থালা ভরিয়ে ফেলুন। তাতে প্রচুর পরিমানে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যা শরীরের অনাক্রম্যতা বাড়ায়। বেশি করে ফল আর সবজি খান।

4. কাঁচা সবজির থেকে সেদ্ধ বা রান্না করা সবজি ভালো কারণ তা আমাদের তাড়াতাড়ি হজম হয়।

5. খাবারে মশলা শুধু স্বাদই বাড়ায় না বরং খাবার যাতে হজম হয়ে শরীরে বেশি পুষ্টি সঞ্চয় হয়, সেটিরও খেয়াল রাখে ।

6. আমাদের টিভি বা কম্পিউটার এর থেকে দূরে বসে শান্তিতে খাবার খাওয়া উচিত, সময় নিয়ে যাতে তা ঠিক মতন হজম হয় |

7. আমাদের বেশি করে জল (খুব ঠান্ডা নয়, সাধারণ তাপমাত্রা) খাওয়া উচিত যাতে শরীরের বর্জ পদার্থ সহজে বেরিয়ে যেতে পারে।

সুতরাং:

1. খাওয়ারটা তৃপ্তি করে ও আনন্দ করে বন্ধু বান্ধব বা আত্মীয় বা পরিবারের সাথে খাওয়া উচিত। কারণ সম্পূর্ণ শারীরিক সুস্থতা মানুষিক সুস্থতার ওপর নির্ভর করে। খাবারে নতুন স্বাদ আনার চেষ্টা করলে সেটা আরো সুস্বাদু হবে।

2. দিনে তিন বার ব্যালান্সড খাবার খাওয়া উচিত যা দুপুরে সবার থেকে বেশি ভারী হবে। আর রাতের খাবার যেটি ঘুমের এর ৩ ঘন্টা আগে খাওয়া উচিত সেটি সবার থেকে হালকা হবে। রোজ অল্প ব্যায়াম করা উচিত এবং খাবার খাওয়ার সময় আর খাবার খাবার পরে চুপচাপ থাকা উচিত।

Commentsআয়ুর্বেদ বলে আমাদের 5 টি ইন্দ্রিয়ই আমাদের হজমশক্তি নিয়ন্ত্রণ করে। তাই স্পর্শ গন্ধ দৃষ্টি ও স্বাদের সাহায্যে খাদ্য নির্বাচন করতে খুব জরূরী।



খাদ্য সংক্রান্ত সাম্প্রতিক খবর, স্বাস্থ্য সংক্রান্ত টিপস, রেসিপি জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

Advertisement
Advertisement