Choti Holi 2019: হোলিকা দহনের সময়, বিধি ও বিশেষ খাবারের গুরুত্ব জানেন?

Happy Holi 2019: এবছর ২০ তারিখ রাত্রি ৮.৫৭ থেকে শুরু করে ১২.২৮ অব্দি চলবে হোলিকা দহন। এর পরেই শুরু হয় রঙ খেলা। হোলিকা দহন (Holika Dahan 2019) এর দিন পাড়ায় পাড়ায় আগুন জ্বালিয়ে উৎসবের সূচনা করা হয়।

एनडीटीवी फूड  |  Updated: March 10, 2019 17:36 IST

Reddit
ChotiHoli 2019: Holika Dahan Date, Timing, Significance, Celebration And Food

২০ মার্চ পালিত হবে হোলিকা দহন

Highlights
  • ২০ মার্চ ন্যাড়া পোড়া বা হোলিকা দহন
  • বসন্তের আগমনের প্রতীক দোল উৎসব
  • দোল মানেই রঙ আর খাওয়াদাওয়া

আর ঠিক সপ্তাহ খানেক পরে দোল উৎসব। এই বছর দোল উৎসব বা হোলি ২১ মার্চ পালন করা হবে। ফাল্গুন মাসের দোল পূর্ণিমায় শুরু হওয়া এই রঙের উৎসব চলে ২ দিন ধরে। প্রথম দিনের দোলকে অনেকেই ছোট হোলি বা হোলিকা দহন বা ন্যাড়া পোড়া (Choti Holi, Holika Dahan) বলে থাকেন। এবছর ২০ তারিখ রাত্রি ৮.৫৭ থেকে শুরু করে ১২.২৮ অব্দি চলবে হোলিকা দহন। এর পরেই শুরু হয় রঙ খেলা। হোলিকা দহন (Holika Dahan 2019) এর দিন পাড়ায় পাড়ায় আগুন জ্বালিয়ে উৎসবের সূচনা করা হয়। হোলি বা দোল আসলে বসন্তের আগমন এবং শীতের চলে যাওয়ার প্রতীক। দেশব্যাপী এই রঙের উৎসব দারুণ সুন্দর ভাবে পালন করা হয়। তবুও মথুরার হোলির নিজস্ব গুরুত্ব রয়েছে। রঙ এখানে আক্ষরিক অর্থেই উৎসব হয়ে ওঠে।

Holi 2019: জানেন কি ন্যাড়াপোড়ার আসল ইতিহাস? জেনে নিন দোলের বিশেষ খাবার কী কী?

হোলিকা দহনের (Holika Dahan 2019) গুরুত্ব

দোল বা হোলির সঙ্গে পৌরাণিক গল্প জুড়ে রয়েছে। শিবের থেকে বর পেয়ে পরাক্রমশালী হয়ে উঠেছিলেন হিরণ্যকশিপু। বর অনুযায়ী, কোনও মানুষ বা পশু তাকে হত্যা করতে পারবে না; তাঁকে দিন বা রাতের মাঝখানেই কেবল হত্যা করা যেত। তাঁর এক পুত্র ছিল, প্রহ্লাদ। প্রহ্লাদ ছিল বিষ্ণুভক্ত। ছেলের এই ভক্তি সইতে পারতেন না হিরণ্যকশিপু। একদিন তিনি প্রহ্লাদকে হত্যা করার সিদ্ধান্ত নেন এবং এর জন্য নিজের বোন হোলিকার থেকে সাহায্য চান। হোলিকাও একটি বিশেষ বর পেয়েছিল। তাঁর বর ছিল যে হোলিকা আগুনের মধ্যে থেকেও কোনও ক্ষতি ছাড়াই বেরিয়ে আসতে পারে। তাই ভাই প্রহ্লাদকে নিয়ে জ্বলন্ত চিতায় ওঠেন তিনি। কিন্তু ঘটনাচক্রে, প্রহ্লাদ বিষ্ণুর নাম জপ করে আগুন থেকে বেরিয়ে এলেও হোলিকা সেই আগুনে পুড়ে মরে যায়। এইভাবে হোলিকা দহন হয়। অশুভের হার ও শুভের জয় নিশ্চিত করতেই এই ন্যাড়াপোড়ার আয়োজন হয়।

holika

হোলিকা দহনের নিয়ম

বেশ কিছু জায়গায় আজও হোলিকা এবং প্রহ্লাদে পুতুলও তৈরি করে রাখা হয়। এই পুতুল আগুনে পোড়ানো হয়। বিশ্বাস করা হয় যে ওই আগুনে আমাদের সমস্ত অশুভ শক্তি, অশুভ ইচ্ছা পুড়ে যাবে এবং জীবন ইতিবাচক হবে। অনেক জায়গায় আবার সকলে বিলে শুকনো গাছের ডালপালা, কাঠ ইত্যাদি দিয়েও ন্যাড়াপোড়া হয়।

ঝোল-অম্বল থাক বা না থাক, পাতে থাকুক একটু ঝাল

Listen to the latest songs, only on JioSaavn.com

ন্যাড়াপোড়া বা হোলিকা দহনের দিনে কী খেতে পারেন?

হোলিকা দহনের সময় ওই আগুনে পোড়ানো খাবার ছাড়াও গুজিয়া, বেসনের সেউ, দই ভাল্লা এবং কানজি বড়ার মতো খাবার খান মানুষ।

Comments



খাদ্য সংক্রান্ত সাম্প্রতিক খবর, স্বাস্থ্য সংক্রান্ত টিপস, রেসিপি জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

Advertisement
সৌন্দর্য
Advertisement