দীপাবলিতে ভেজাল মিষ্টি থেকে সতর্ক থাকুন, দেখে নিন কোন মিষ্টি এড়িয়ে চলবেন

দুধের জল ছাড়াও চক, ইউরিয়া, সাবান এবং রাসায়নিক সাদা পদার্থ থাকতে পারে। খোয়াতে কাগজ এবং স্টার্চ থাকতে পারে। রাংতার বদলে অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল দেওয়া হছে। ঘি’তে বনস্পতি বা পশুর চর্বি থাকতে পারে

एनडीटीवी फूड  |  Updated: November 06, 2018 12:00 IST

Reddit
Diwali 2018: check Adulterated Sweets And Their Ingredients

সারা দেশ জুড়ে বুধবার, 7 নভেম্বর উদযাপিত হবে আলোর উত্সব। দীপাবলি হল বছরের সেই সময় যখন প্রিয়জনের মধ্যে উপহার বিনিময় করা হয় এবং প্রাণ ভরে মিষ্টি খাওয়ার দিনও এই উৎসবই। কাজু বরফি, লাড্ডু, শোনপাপড়ি থেকে শুরু করে নানান মিষ্টি এই সময় অনেকেই বাড়িতেই তৈরি করেন। ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি ছাড়া দীপাবলি একেবারেই অসম্পূর্ণ। দোকানে দোকানে তাই মিষ্টির চাহিদা আকাশ ছুয়েছে যথারীতি। কিন্তু এত ব্যাপক চাহিদার জোগান কীভাবে আসে? অনেক মিষ্টির দোকানই গুণমানের সাথে আপোস করে ভেজাল দিয়ে তৈরি করেন মিষ্টি, বিশেষত দুধ-ভিত্তিক মিষ্টি।

ইকুইনক্স ল্যাবসের প্রধান নির্বাহী অশ্বিন ভাদ্রির মতে, "উৎসব এলেই দুধের মিষ্টির চাহিদা বেড়ে যায়। এক দশকেরও বেশি সময় ধরে খাদ্য ব্যবসায়ের সঙ্গে জড়িয়ে থাকার কারণে, আমি জানি এখনও ভেজাল দিয়ে মিষ্টি বানানোর কারবার খুব প্রচলিত বাজারে। মিষ্টি উৎসবের সময় সবচেয়ে পছন্দসই খাবারের আইটেম, তাতে ইচ্ছাকৃতভাবে স্বাস্থ্যের সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে এমন পদার্থ যোগ করা হচ্ছে।"

uhu7777g

 

দুধের মিষ্টি, দুধ এবং অন্যান্য মিষ্টিতে সম্ভাব্য কী কী ভেজাল দেওয়া যায়?

ভাদ্রির মতে, "মিষ্টি তৈরিতে কিছু উপাদান লাগে যেমন, খোয়া, ঘি, তেল, রাংতা, দুধ, কৃত্রিম স্বাদ এবং রং। এই সকল জিনিসেই ইচ্ছাকৃতভাবে আর্থিক লাভের জন্য ভেজাল দেওয়া যেতে পারে। দুধের জল ছাড়াও চক, ইউরিয়া, সাবান এবং রাসায়নিক সাদা পদার্থ থাকতে পারে। খোয়াতে কাগজ এবং স্টার্চ থাকতে পারে। রাংতার বদলে অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল দেওয়া হছে। ঘি'তে বনস্পতি বা পশুর চর্বি থাকতে পারে। "

কীভাবে ভেজাল মিষ্টি চিনবেন দেখে নিন-

বেশিরভাগ মিষ্টির উপরে রূপোলি রাংতা থাকে। বিক্রেতারা অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল দিয়েই অনেক সময় কাজ চালিয়ে নেন। এর ফলে গুরুতর পেটের সংক্রমণ হতে পারে। আঙ্গুল দিয়ে আলতো করে মিষ্টি স্পর্শ করুন। যদি এটি আপনার আঙুলে লেগে যায় তবে বুঝবেন ভেজাল রাংতা।

সর্বদা বেশি পরিমাণে কেনার আগে মিষ্টি স্বাদ বা গন্ধ যাচাই করে নিন।

সাধারণত পনীর, খোয়া ও দুধের মতো খাদ্যদ্রব্যগুলি স্টার্চের সাথে মিশে যায় ফলত মিষ্টি বেশ পুরু হয়। খোয়াতে স্টার্চ আছে কিনা বুঝতে সামান্য অংশ নিয়ে জলে ঢেলে ফোটান। ঠান্ডা হয়ে গেলে দু'ফোটা আয়োডিন যোগ করুন। যদি দ্রবণটি নীল হয়ে যায় তবে জানবেন স্টার্চ আছে।

দুধে জল আছে কিনা তা পরীক্ষা করার জন্য একটি মসৃণ জায়গায় একটি ফোঁটা দুধ ফেলুন। দুধ যদি বিশুদ্ধ হয় তবে তা ধীরে ধীরে প্রবাহিত হবে এবং সাদা দাগ থাকবে। ঘি পরীক্ষা করার সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি হল প্যানের মধ্যে একচা চামচ ঘি গরম করে নিন। যদি ঘি তৎক্ষণাৎ গলে যায় এবং গাঢ় বাদামী রঙের হয়, তবে এটি হল শুদ্ধ ঘি।

diwali sweets

বেশিরভাগ মিষ্টির উপর রাংতা (রৌপ্য আচ্ছাদন) থাকে

কিভাবে সঠিক মিষ্টি কিনবেন?

উত্সবের সময় এই সমস্যাগুলি মোকাবেলা করার জন্য আমাদের নিজস্ব কিছু ছোট অথচ কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। সঠিক মিষ্টি কেনার জন্য এখানে কিছু বিষয় দেওয়া রইল যা মাথায় রাখতে হবে আপনাকে।

কোনও প্যাকেজড মিষ্টি, চকলেট, কুকি, স্ন্যাকস কেনার সময় সর্বাগ্রে FSSAI লোগো এবং লাইসেন্স নম্বর দেখে নিন।

এর পাশাপাশি কবে তৈরি হয়েছে, কতদিন ভালো থাকবে তার তারিখ, ব্যাচ/লট নম্বর, উপাদান তালিকা, পুষ্টির তথ্য যাচাই করা উচিত।

আপনি যদি বাড়িতে মিষ্টি তৈরি করতে চান তবে নির্ভরযোগ্য বিক্রেতার কাছ থেকে, যার  FSSAI লাইসেন্স আছে, তাঁর থেকেই কাঁচামাল কিনুন।

বিশ্বাসযোগ্য দোকানদারের কাছ থেকে মিষ্টি কেনার কথা ভাবুন, এবং ওই মিষ্টি দোকানে মৌলিক স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা হয় কিনা নিশ্চিত করুন।

delicious kolkata sweets other than roshogulla

ভেজাল মিষ্টি খাওয়ার ফলে সম্ভাব্য ঝুঁকি কী কী?

ভেজাল মিষ্টি সামান্যতম পরিমাণে খেলেও শরীরের ক্ষতি হতে পারে। সম্পৃক্ত ফ্যাট ধারণকারী এই মিষ্টি মানুষের রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায়। রক্তে এলডিএল কোলেস্টেরলের উচ্চ মাত্রা হৃদরোগ এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায়। অ্যালুমিনিয়াম উচ্চ মাত্রায় খাওয়া হলে মস্তিষ্ক এবং হাড়ের রোগ হতে পারে। এটি শিশুদের মধ্যে কিডনির রোগের অন্যতম কারণ। মিষ্টিতে ব্যবহৃত রং থেকে এলার্জি হতে পারে।

Comments



খাদ্য সংক্রান্ত সাম্প্রতিক খবর, স্বাস্থ্য সংক্রান্ত টিপস, রেসিপি জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

Advertisement
Advertisement