'‘লওট আয়ে দিওয়ালি', আপ্যায়নে চানা ক্ষীর, বেসনের হালুয়া’': শেফ সঞ্জীব কাপুর

তখনও সঞ্জীব কাপুর সেলেব শেফ নন। বয়সেও নিতান্তই ছোট। আপনার-আমার বাড়ির খুদেদের মতোই উৎসব এলে আনন্দে মেতে উঠতেন।

Upali Mukherjee  |  Updated: October 21, 2019 17:00 IST

Reddit
Diwali Special Chana Kheer and Beswan Ka Halwa By Celeb Chef Sanjeev Kapoor

উৎসবে মিষ্টিমুখ হয়ে যাক

রান্নার পাশাপাশি ছবিতেও শেফ সঞ্জীব কাপুর! পরিবেশে এমন আনন্দের খবরটা কানে আসতেই ফোন সেলেব শেফকে। টাটা সমপনের ডিজিটাল ফিল্ম 'লওট আয়ে দিওয়ালি'তে (Laut Aye Diwai) অংশ নেওয়ার পাশাপাশি নিজের জীবনের গল্পের ঝুলি NDTV-র কাছে উপুড় করলেন তিনি। তখনও সঞ্জীব কাপুর (Chef Sanjeev Kapoor) সেলেব শেফ নন। নিতান্তই ছোট। আপনার-আমার বাড়ির খুদেদের মতোই উৎসব এলে আনন্দে মেতে উঠতেন। বিশেষ করে দিওয়ালির (Diwali) সময়। একাধিক কারণে। এক, উৎসব মানেই ছুটি। দুই, বাজি পোড়ানো, নতুন পোশাক পরে বন্ধুদের সঙ্গে হইচই। তিন, ভালোমন্দ খাওয়া, উপহার দেওয়া-নেওয়া। বিশেষ করে মা-দিদিমার হাতের মিষ্টি আর নোনতা রেসিপি। তাঁর এখনও মনে আছে, সেই সময় পরিবেশ এতটাও দূষিত ছিল না বলে দিওয়ালি এলেই নানা ধরনের বাজি পোড়াতেন সঞ্জীব। আর ছিল বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরে-বেড়ানো। পরিবারের সঙ্গে বাইরে বেড়াতে যাওয়া। একই সঙ্গে বাড়িঘর পরিচ্ছন্ন করে প্রদীপ, আলোয় বাড়ি সাজানো।

rht3j8ig



সেই সময় সঞ্জীবের বাড়িতে নানা ধরনের মিষ্টি বা মিঠাই বানানো হত। তালিকায় থাকত নানা ধরনের বরফি। যেমন, গাজর চকলেট, কাজুবাদামের বরফি। আর একটি খাবার তৈরি হত শেফের বাড়িতে। সেটা নোনতা। কাজুবাদামের সারা শরীরে নানা রকম মশলা মাখিয়ে শুকনো খোলায় নেড়েচেড়ে মুচমুচে বানানো হত। সেই স্পেশ্যাল ডিশ বাড়ির বড়দের সঙ্গে সঞ্জীব নিয়ে যেতেন আত্মীয়, পড়শির বাড়িতে। সময় গড়িয়েছে। সঞ্জীব বড় হয়েছেন। সব কিছুই এখন অন্যরকম। সবাই প্রায় ফিটনেস ফ্রিক। স্বাস্থ্য সচেতন হতে গিয়ে দাড়ি পড়েছে ভালোমন্দ খাওয়াদাওয়ায়।তবু দিওয়ালি এলে এখনও বাড়ির শ্রী ফেরে। অতিথি আসেন। অ্যাপায়নের জন্য বাড়িতে বানানো হয় নানা স্বাদের নোনতা-মিষ্টি খাবার। শেফের পরামর্শ, শরীর ঠিক রাখতে, চিনির বদলে ড্রাই ফুট ব্যবহার করুন। যেসব ফল মিষ্টি তাই দিয়ে ডেজার্ট বানান। খাওয়াও হবে। স্বাস্থ্যও ভালো থাকবে। আর বছরে একদিন নিয়ম ভাঙলে কোনও ক্ষতি নেই। বরং পরে দিন থেকে পুরনো রুটিনে ফিরে, ওয়ার্কআউট করে ক্যালোরি বার্ন করে নিলেই হল।  

Diwali 2019:দীপাবলি ঝলমলে ৫ ফিউশন মিষ্টির গুণে

সঞ্জীবের এই অনুভূতি এখন ঘরে ঘরে, সবার মনে। সেই অনুভূতিকে নিয়েই এই ছবি। এই ছবির লিঙ্ক ক্সিক করলেই ছবি দেখার পাশাপাশি নীচে পাবেন জনপ্রিয় শেফের বেশ কিছু রেসিপির লিঙ্ক। যাঁরা সেই রিসেপি ডাইনলোড করবেন তাঁদের মধ্যে থেকে একজন ভাগ্যবান পেয়ে যাবেন শেফের সঙ্গে মুখোমুখি হওয়ার সুযোগ। পাশাপাশি NDTV-র পাঠকদের জন্য দিলেন দুটি সঞ্জীব স্পেশাল রেসিপি---



er9goac8



বেসনের হালুয়া

কী কী লাগবে: বেসন ১ কাপ, চিনি সিকি কাপ, দেশি ঘি সিকি কাপ, দুধ দেড় কাপ, কাজু-আমন্ড-কিসমিশ ২ টেবিল চামচ করে।

কীভাবে বানাবেন: কড়াই বা তাওয়া আঁচে বসিয়ে বেসন ভেজে নিন ১০-১২ মিনিট। তাতে ঘি আর চিনি দিয়ে মানে নাড়তে থাকুন। দেখবেন যেন ডেলা পাকিয়ে না যায়। এবার অল্প করে দুধ মেশাতে থাকুন। নাড়তে থাকবেন সঙ্গে সঙ্গে। পুরোটা ফুটে ঘন হলে ড্রাই ফ্রুট ওপরে ছড়িয়ে গরমগরম পরিবেশন করুন।

6rgc178o



চানা ক্ষীর

কী কী লাগবে: ছোলার ডাল ১ কাপ, খোয়া ক্ষীর আধ কাপ, গুড় সিকি কাপ, দুধ ১ কাপ, কাজু-পেস্তা-আমন্ড কুচি, ঘি ১ টেবিল চামচ করে, নারকেল কোরা, গোলাপ জল ১ টেবিল চামচ করে, এলাচ গুঁড়ো আধ চা-চামচ।

কীভাবে রাঁধবেন: ছোলার ডাল ঘণ্টাখানেক ভিজিয়ে, ধুয়ে প্রেসারে সেদ্ধ করে নিন। কড়াইয়ে আধ কাপ জল দিয়ে খোয়া ক্ষীর আর গুড় দিয়ে ফোটাতে থাকুন ঢিমে আঁচে। ভালো করে মিহি ভাবে মিশে গেলে নামিয়ে নিন। এবার কড়াইয়ে ঘি গরম করে তাতে ড্রাই ফ্রুট সোনালি করে ভেজে নিন। এবার তাতে ছোলার ডাল দিয়ে নাড়তে থাকুন। কিছুক্ষণ পরে দুধ দিয়ে পুরোটা ভালো করে মেশান। শেষে বাকি সমস্ত উপকরণ দিয়ে ভালো করে নাড়িয়ে মিশিয়ে নামিয়ে নিন। ওপরে এলাচগুঁড়ো, ড্রাই ফ্রুট ছড়িয়ে, ফ্রিজে ঠাণ্ডা করে পরিবেশন করুন।

Comments

খাদ্য সংক্রান্ত সাম্প্রতিক খবর, স্বাস্থ্য সংক্রান্ত টিপস, রেসিপি জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

Advertisement
Advertisement