রোজ এক কাপ ক্যামোমাইল চা ডায়াবেটিকদের জন্য যেন আশীর্বাদ

পড়ুন | Read In

   |  Updated: December 03, 2018 16:59 IST

Reddit
Drink A Cup Of Chamomile Tea Daily for Diabetes Management

ডায়াবেটিকদের এই বিশেষ রোগটির কারণে খাদ্য তালিকা থেকে একের পর এক খাবার বাদ পড়তে থাকে। পরিমার্জিত কার্বস, চিনি, বায়ুযুক্ত পানীয়, সোডা, ফলের রস, রুটি ডায়াবেটিকদের খাদ্যতালিকায় একেবারেই অন্তর্ভুক্ত করা হয় না। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, ২০৩০ সালের মধ্যে প্রায় ৯৮ মিলিয়ন ভারতীয় ডায়াবেটিসে ভুগবেন। সচেতনতা এবং ভুল শনাক্তকরণের ফলেই ডায়াবেটিস পরিচালনা কঠিন হয়ে ওঠে। যদি তা নিয়ন্ত্রণের জন্য কিছুই করা হয় না তাহলে একই সঙ্গে কিডনির জটিলতা, কার্ডিওভাসকুলার ঝুঁকি এবং স্থূলতাও বৃদ্ধি পেতে পারে। যদিও বিজ্ঞানী এবং গবেষকরা এখনও এই অবস্থার বিপরীত উপায় খুঁজে বের করতে কাজ করছেন, তবুও ডায়াবেটিকদের রক্তের শর্করার মাত্রা পরীক্ষা করার জন্য খাদ্যতালিকাগত সতর্কতা গ্রহণ করতেই বলেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, দৈনিক ক্যামোমাইল চা খেলে ডায়াবেটিস পরিচালনার সহায়ক হতে পারে।

ক্যামোমাইল ডেইজি পরিবারের একটি সুগন্ধযুক্ত ইউরোপীয় উদ্ভিদ, একে হিন্দিতে বাবুনে কা ফল বলেও ডাকা হয়। পর্যাপ্ত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যেমেটারি যৌগ সম্পন্ন ক্যামোমাইল চা ঘুম ভালো করে, অনাক্রম্যতা বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে, হজম বাড়ায় এবং এটি অ্যান্টি-এজিং বলেও পরিচিত। এটি ডায়াবেটিস পরিচালনা করতে সাহায্য করে।

ওজন কমাতে এই শীতে রোজ এক গ্লাস তাজা পালং শাকের রসই যথেষ্ট

 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

A post shared by Medical Medium® (@medicalmedium) on

এক কাপ ক্যামোমাইল চা কীভাবে ডায়াবেটিস পরিচালনা করতে সাহায্য করে জেনে নিন- 

আপেল খোসা ছাড়িয়ে খান? জেনে নিন স্বাস্থ্যের কী মারাত্মক ক্ষতি করছেন আপনি

ক্যামোমাইল চাতে বহু প্রদাহবিরোধী যৌগ আছে। বিরোধী-প্রদাহজনক বৈশিষ্ট্যই আপনার প্যানক্রিয়াসের কোষগুলির যেকোনো ধরনের ক্ষতি প্রতিরোধে সহায়তা করে। প্যানক্রিয়াস আমাদের শরীরের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ, এটি আমাদের রক্ত ​​শর্করার মাত্রা নির্ধারণে সাহায্য করে। আপনার রক্ত ​​শর্করার মাত্রা ক্রমাগত বাড়তে থাকলে হলে প্যানক্রিয়াস গুরুতরভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

জার্নাল অফ এন্ডিক্রিনোজিকাল ইনভেস্টিগেশন প্রকাশিত একটি গবেষণায়, খাবারের সাথে দৈনিক ক্যামোমাইল চা খেয়ে প্রতিযোগীরা মাত্র আট সপ্তাহেই রক্তে চিনির মাত্রা কমিয়ে ফেলেছিলেন। এই গবেষণায় টাইপ 2 ডায়াবেটিস মেলিটাস রোগীদের মধ্যে গ্লাইসেমিক নিয়ন্ত্রণ এবং সিরাম লিপিড প্রোফাইলের উপর ক্যামোমাইল চা খাওয়ার প্রভাবগুলিই জানার চেষ্টা করা হয়েছিল।

কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে, খাবারের ঠিক পরেই যে রক্ত শর্করার মাত্রা হঠাত বেড়ে যায় তাও কমাতে সাহায্য করে অল্প পরিমাণ ক্যামোমাইল চা। ক্যামোমাইল চাও একটি কম ক্যালোরির পানীয় যা ওজনহ্রাসে সাহায্য করে।

সহজে আপনার কাছাকাছি কোনও দোকানেই ক্যামোমাইল চায়ের প্যাকেট পাবেন। কিন্তু এর অর্থ এই নয় যে আপনি দৈনিক ৫-৬ কাপ ক্যামোমাইল চা খেতে শুরু করলেন। ডাক্তারের নিয়ম মেনেই নির্দিষ্ট পরিমাণে সংযম রেখে খান।

খাদ্য সংক্রান্ত আরও খবর এখানে 

Comments

খাদ্য সংক্রান্ত সাম্প্রতিক খবর, স্বাস্থ্য সংক্রান্ত টিপস, রেসিপি জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

Advertisement
সৌন্দর্য
Advertisement