Ganesh Chaturthi 2018: জানেন কী কীভাবে দক্ষিণ ভারতে উদযাপিত হয় গণেশ চতুর্থী?

   |  Updated: September 13, 2018 10:06 IST

Google Plus Reddit
Ganesh Chaturthi 2018: South India too Celebrates Ganesh puja as Ganesh Habba
Highlights
  • India is celebrating Ganesh Chaturthi that commenced on 25th August
  • Lord Ganesh is considered as the harbinger of knowledge and wisdom
  • Vinayaka Chaturthi is celebrated observe Lord Gajanans birthday

এই বছর গণেশ চতুর্থী উদযাপিত হবে 13 সেপ্টেম্বর। বুদ্ধি, জ্ঞান, সৌভাগ্য এবং সমৃদ্ধির দেবতা হলেন গণেশ। গণেশ চতুর্থী আসলে ভগবান গণেশের জন্মদিন হিসেবেই পালন করা হয়ে থাকে। চন্দ্রমাসে ভদ্রাপদতে যা সাধারণত অগাস্ট এবং সেপ্টেম্বর মাসেই পড়ে, পুজো করা হয় গণেশের। মহারাষ্ট্রের পাশাপাশি দক্ষিণ ভারতেও বড় করেই হয় গণেশ পুজো। কর্ণাটক ও অন্ধ্রপ্রদেশেরর নানা জায়গায় ধুমধাম করে মহাসমারোহে পালিত হয় গণেশ চতুর্থী।

গণেশ চতুর্থী 2018: দক্ষিণ ভারতে এই উৎসব উদযাপন কীভাবে হয়?

কর্ণাটকে গণেশ চতুর্থীকে গণেশ হাব্বা (Ganesh Habba) বলা হয়।পুজোর আগে দেবতাকে স্বাগত জানানোর জন্য নিজেদের ঘর পরিষ্কার করেন মানুষ এবং বাড়ি ঘর মন্দির সবই সুন্দরভাবে সজ্জিত করে তোলা হয়। কলাপাতায় পরিবেশন করা হয় স্থানীয় সমস্ত খাবার। নানা স্বাদের মিষ্টি যেমন, মোদক, কোসাম্বরী, গজজু, মোসারু ভাজজি ও পায়সামের মত সুস্বাদু মিষ্টি প্রস্তুত হয় ঘরে ঘরে। দক্ষিণে সমস্ত বিখ্যাত অনুষ্ঠানেই খাবারের একটি বড় অংশ জুড়ে থাকে নারকেল। গণেশ পুজোর জন্য চাল, হলুদ, শস্য, ফুল ও ফল ব্যবহার হয় ব্যাপকভাবে। কর্ণাটকে সাধারণত এই ভোগ তৈরিতে উইলো ব্যবহার করা হয়।

ganeshকর্ণাটকে গণেশ চতুর্থী গণেশ হাব্বা নামে পরিচিত

গণেশ চতুর্থী 2018: গৌরী হাব্বার গুরুত্ব

দক্ষিণ ভারতের কিছু কিছু জায়গায়, বিশেষ করে কর্ণাটক, অন্ধ্রপ্রদেশ এবং তামিলনাড়ু রাজ্যে গণেশ চতুর্থীর একদিন আগে গৌরী হাব্বা পালন করা হয়। দেবী গৌরী, শিবের স্ত্রী এবং গণেশ ও সুব্রামন্যর মা। পৌরাণিক মতে, তিনি আদি শক্তি মহামায়ার সবচেয়ে শক্তিশালী অবতার।

বিশ্বাস করা হয় যে, ভদ্রাপদ মাসের 13 তম দিনে, গৌরীকে তাঁর ভক্তের নিজ নিজ গৃহে স্বাগত জানায়। পরের দিন, তাঁর পুত্র গণেশকে স্বাগত জানায়। কারণ গণেশ তাঁর মা গৌরীকে কৈলাশে ফেরত নিয়ে যেতে আসেন বলেই মানুষের বিশ্বাস।

ganesh chaturthiগণেশ চতুর্থীর একদিন আগেই পালিত হয় গৌরী হাব্বা

গণেশের জন্য নানান ভোগ-

এই পুজো উপলক্ষ্যে নানান মিষ্টি তৈরি করা হয় এই সময়। মা গৌরী ও তাঁর সন্তান গণেশকে মর্ত্যে অভ্যর্থনা জানাতে ভক্তরা নানান রকমের মিষ্টি যেমন, হোলিগ, ওবাত্তু, পায়েস, হুজ্ঞি, চিত্রান্না, বাজ্জি তোইরি করে। এগুলি নৈবেদ্য হিসেবে গণেশকেও দেওয়া হয়, আবার প্রসাদ হিসেবেও বিতরণ করা হয়।

Comments

খাদ্য সংক্রান্ত সাম্প্রতিক খবর, স্বাস্থ্য সংক্রান্ত টিপস, রেসিপি জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

Advertisement
Advertisement