কিউইর খোসা ছাড়ানোর তিনটি উপায়, জেনে নিন এর উপকারও

কিউই ভিটামিন এ, বি 6, বি 12, ই এবং পটাসিয়াম, ক্যালসিয়াম, লোহা এবং ম্যাগনেসিয়ামের মতো ভিটামিন ও খনিজ পদার্থে ভরা

एनडीटीवी फूड  |  Updated: July 27, 2018 08:50 IST

Reddit
How To Peel Kiwi: 4 Benefits Of Kiwi
Highlights
  • ভিটামিন ও খনিজে পরিপূর্ণ কিউই ফল
  • কিউই দেখতে আকর্ষণীয় তো বটেই, স্বাদেও অতুলনীয়
  • সাধারণত খোসা ছাড়িয়ে কাঁচাই খাওয়া হয় এটি

কিউই ফলের গুণ নিয়ে এখন বহু মানুষই ওয়াকিবহাল। চিনা গুজবেরি নামেও পরিচিত এই ফলটি স্যালাড, আইসক্রিম, ডেজার্ট সাজাতে ব্যবহার হয়। মাংস সেদ্ধ করার সময় নরম করার জন্যও কিউই ব্যবহার করেন অনেকে। এশিয়া এবং অস্ট্রেলিয়ায় এই ফল ইতিমধ্যে মধ্যে বেশ জনপ্রিয়, এবং গত কয়েক দশকে পাশ্চাত্যেও জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে এই ফল। আমরা সর্বাধিক পুষ্টিকর ফল হিসাবে এখনও আপেলকেই এগিয়ে রাখি।  কিউইও ভিটামিন ও মিনারেলে ঠাসা। ইউনাইটেড স্টেটস ডিপার্টমেন্ট অফ এগ্রিকালচার (ইউএসডিএ) অনুসারে, 100 গ্রাম কিউইতে 61 ক্যালোরি, 14.66 গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, 1.14 গ্রাম প্রোটিন, 0.52 গ্রাম চর্বি এবং 3 গ্রাম ফাইবার রয়েছে। কিউই সাধারণত কাঁচাই খাওয়া হয়।  কিন্তু, প্রথমে আসুন কীভাবে খোসা ছাড়ানো হয় কিউই তা জেনে নিই।

কিউই ফলের খোসা ছাড়ানোর তিনটি উপায় আছে: প্রথম, ছুরি বা  পিলার ব্যবহার করে; দ্বিতীয়, চামচ বা ফল স্কুপার দিয়ে; এবং তৃতীয়, ঠাণ্ডা-গরম জলে ফুটিয়ে খোসা উঠিয়ে ফেলা। ছুরি বা পিলার দিয়ে খোসা ছাড়ানোই সবচেয়ে সোজা।

fntg8jfg

কিউই ফল দেখতেও আকর্ষণীয়, স্বাদেও অতুলনীয়.

পাঁচ মিনিটেই খোসা ছাড়ানঃ

পদ্ধতি 1. ছুরি বা পিলার ব্যবহার করে

যে হাত কম ব্যবহার করেন সেই হাতে কিউই এবং অন্য হাতে পিলার বা ছুরিটি ধরুন।

ফলের উপরের অংশে ছুরির ধারালো দিকটা রাখুন, এবং মৃদু চাপ প্রয়োগ করুন।

কিউইর খোসা লম্বালম্বি ভাবে ছাড়াতে শুরু করুন। বেশি জোর দিয়ে বেশি গভীর করে কেটে ফেলবেন না যেন।

siac77f

খোসা ছাড়াতে ছুরি ব্যবহার করুন.

পদ্ধতি 2: চামচ বা ফলের স্কুপার ব্যবহার করে

কিউইয়ের দু’টো দিকই কেটে ফেলুন।

খোসা এবং শাঁসের মধ্যে স্কুপার বসান।

স্কুপার দিয়ে শাঁস আলাদা করতে থাকুন খোসা থেকে।

0q5v281g

চামচ বা স্কুপার ব্যবহার করতে পারেন

পদ্ধতি 3: গরম-ঠাণ্ডা জলে দিয়ে খোসা তুলে নেওয়া

একটি তলা ভারী পাত্রে জল নিন।

জল গরম করে ফোটান, এবং কিউই গুলো ঢেলে দিন তার মধ্যে। 25 থেকে 30 সেকেন্ডের বেশি ফোটাবেন না।

এখন, জল থেকে কিউই বের করে ঠান্ডা জলে দিন।

কিউইগুলো ঠাণ্ডা হয়ে গেলে ধীরে ধীরে হাত দিয়েই খোসা ছাড়িয়ে নিন।

u6kv8i88

গরম জলে ফুটিয়ে তারপর ঠাণ্ডা জলে দিয়ে খোসা ছাড়াতে পারেন.

আপনার প্রিয় ডেজার্ট, স্যালাড বা স্মুদিতে কিউই মেশাতে পারেন। এই ফলে অপরিহার্য ভিটামিন এবং খনিজ পদার্থ রয়েছে যা আপনার শরীরে পুষ্টির পরিমাণ বাড়াতে সাহায্য করে।

দেখে নিই কিউইএর কিছু গুণ:

কিউই ভিটামিন সি সমৃদ্ধ

প্রতি 100 গ্রামের মধ্যে 92.7 গ্রাম ভিটামিন C রয়েছে এই ফলে। লেবু বা কমলার চেয়েও যা দ্বিগুণ।  ভিটামিন C শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসাবে কাজ করে, এছাড়া ক্ষতিকর জীবাণুর থেকে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ায়।

ফাইবারে পরিপূর্ণ

কিউই ফাইবারে সমৃদ্ধ। যা বহু রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে। ফাইবার-সমৃদ্ধ খাবার ব্যবহারে কার্ডিওভাসকুলার রোগ এবং করোনারি হৃদরোগ (সিএইচডি) উভয়ের ঝুঁকি কমাতে পারে। ফাইবার রক্তচাপ, কোলেস্টেরল এবং রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে।

হজমের ক্ষমতা বাড়ায়

কিউইতে আছে অ্যাকটিনিডাইন উৎসেচক। যা প্রোটিন দ্রবীভূত করতে সাহায্য করে। তাই মাংস নরম করতেও এই ফলের ব্যবহার করা হয়। পেট পরিষ্কারের সমস্যায় ভোগেন যারা, তাঁদের জন্যও এই ফল খুবই লাভদায়ক।

ভিটামিন এবং খনিজের সম্ভার কিউই

কিউই ভিটামিন এ, বি 6, বি 12, ই এবং পটাসিয়াম, ক্যালসিয়াম, লোহা এবং ম্যাগনেসিয়ামের মতো ভিটামিন ও খনিজ পদার্থে ভরা। এই সব পুষ্টি পদার্থের কারণে শরীরে রক্ত ​​সঞ্চালন ভালো হয়, হাড় এবং দাঁত ভালো থাকে, দৃষ্টি শক্তি বাড়ে।

Comments

খাদ্য সংক্রান্ত সাম্প্রতিক খবর, স্বাস্থ্য সংক্রান্ত টিপস, রেসিপি জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

Advertisement
Advertisement