পেঁয়াজ সংকটে কলকাতা! বড়দিন নববর্ষে কি দাম বাড়বে বিখ্যাত সব রেস্তোরাঁর মেনুর!

রেস্তোরাঁ মালিকদের আশঙ্কা, ক্রিসমাস এবং নববর্ষে খাবারের দাম বাড়াতে হলে মুখ ফিরিয়ে নেবেন গ্রাহকরা। রান্নাঘরের অন্যতম প্রধান আনাজটির দাম কলকাতায় এখনও ১৫০ থেকে ১৭০ টাকা প্রতি কেজিতেই ঘোরাফেরা করছে।

Edited by: Madhurima Dutta  |  Updated: December 11, 2019 13:15 IST

Reddit
Kolkata Restaurants Oudh 1590, Chowman and other See Dip In Profits As Onion Prices Soar

ক্রিসমাস আসছে, শীত তেমন না এলেও শীতের আমেজ তো ভরপুর বাঙালির মনে। শুধু মনে নয়, পেটেও! তবে এই শীতে ভোজনরসিক বাঙালির রসনার তৃপ্তিতে বাধ সেধেছে অগ্নিমূল্য পেঁয়াজ। শহরের রেস্তোঁরা ব্যবসাতে বেশ ভালোই প্রভাব পড়েছে এই মূল্যবৃদ্ধির কারণে। রেস্তোরাঁ মালিকদের আশঙ্কা, ক্রিসমাস এবং নববর্ষে খাবারের দাম বাড়াতে হলে মুখ ফিরিয়ে নেবেন গ্রাহকরা। রান্নাঘরের অন্যতম প্রধান আনাজটির দাম কলকাতায় এখনও ১৫০ থেকে ১৭০ টাকা প্রতি কেজিতেই ঘোরাফেরা করছে। বেশ কিছু রেস্তোরাঁ বেশ চাপে পড়েছে এই ক্রমবর্ধমান দাম নিয়ে। অনেকেই আবার পরিস্থিতি না বদলালে গ্রাহকদের কাছে খাবারের দাম বাড়ানোর কথাও ভাবছেন। শহরে চারটি শীর্ষস্থানীয় রেস্তোরাঁর সহ-মালিক শিলাদিত্য চৌধুরী বলেন যে তাঁর রেস্তোঁরা ‘আউধ 1590' (Oudh 1590) এখনও স্টার্টারের সঙ্গে স্যালাড হিসেবে পেঁয়াজ বিনামূল্যেই দিচ্ছে। তিনি পিটিআইকে বলেন, “অবশ্যই আমরা খাবারের দাম বাড়াতে পারি না কারণ তাতে গ্রাহকদের ক্ষতি। আমরা আশাবাদী যে এক মাসের মধ্যেই পরিস্থিতি স্থিতিশীল হবে।" 

৫৯ টাকা দরে পেঁয়াজ মিলছে শুনে সরকারের সুফল বাংলা থেকেই লুঠ ২০ কেজি পেঁয়াজ!

রেস্তোরাঁর কর্মী বলেন, "‘চিকেন ইরানি', ‘গোস্ত রোগান জোশ', ‘ভেজিটেবল স্ট্রোগানঅফ' এবং ‘ল্যাম্ব গৌলাশে'র মতো পদগুলিতে পর্যাপ্ত পরিমাণে পেঁয়াজের প্রয়োজন। “যদিও আমরা স্বাদ এবং রেসিপি নিয়ে আপোস করতে পারি না তাও পর্যাপ্ত পরিমাণে পেঁয়াজ সংগ্রহ করা আমাদের পক্ষে কঠিন হয়ে পড়েছে।” সমসাময়িক এবং ফিউশন খাবারের রেট্রো-থিমের ক্যাফে ম্যাকাজোর (Macazzo) সহ-মালিক বিতান মুখোপাধ্যায় বলেন যে বিভিন্ন পদের দাম বাড়ানোর আগে তিনি কিছুক্ষণ অপেক্ষা করেই দেখতে চান। “পেঁয়াজের আকাশ ছোঁয়া দাম আমাদের মুনাফাকে প্রভাবিত করছে। আমাকে প্রয়োজন হ'লে গ্রাহকদের কাছে পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করতে হবে,” বলেন বিতান। তাঁরই কথার যেন প্রতিধ্বনি শোনা যায় সুপরিচিত চিনা খাবারের রেস্তোরাঁ চাউম্যানের (Chowman) মালিক দেবাদিত্য চৌধুরীর গলায়। দেবাদিত্য বলেন, “পেঁয়াজ এমন একটি আনাজ যার বিকল্প নেই। খাবারের দাম এখনও পর্যন্ত পরিবর্তন করা হয়নি কারণ তাতে ক্রিসমাস এবং নববর্ষের সময় বিক্রি কমে যেতে পারে। তবে এই পরিস্থিতি যদি অব্যাহত থাকে তবে আমাদের মেনুর দাম বাড়াতে হবেই।”

Video: "পেঁয়াজ কত টাকায় বেচছেন?" যদুবাবুর বাজারে মুখ্যমন্ত্রীর সটান প্রশ্ন দোকানিকে!

পূর্ব ভারতের হোটেল এবং রেস্তোঁরা সমিতির সচিব (Hotel and Restaurant Association of Eastern India) সুদেশ পোদ্দার জানিয়েছেন, পরিস্থিতি পর্যালোচনার জন্য তিনি শীঘ্রই সদস্যদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন। মহারাষ্ট্রের মতো বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ রাজ্যগুলিতে সরবরাহ ব্যাহত হওয়ার কারণে গত এক মাস ধরেই পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। গেরস্থের রান্নাঘর এবং রাস্তার ধারের খাবারের দোকানগুলিও পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাবে জেরবার। মধ্য কলকাতার ঝালমুড়ি বিক্রেতা প্রমোদ ঝা জানান, মুড়ি মাখায় পেঁয়াজ দেওয়া এখন বাহুল্য। গোলমরিচ এবং অনেকটা করে লঙ্কা দিয়েই কাজ চালাতে হচ্ছে এখন।” প্রমোদ বলেন, “আমি প্রতিদিন ৪-৫ কেজি পেঁয়াজ কিনতাম। এখন আমার সামর্থ্যই নেই... আশা করি, খদ্দেররাও আমার পরিস্থিতি বুঝতে পারবেন।”

Comments

খাদ্য সংক্রান্ত সাম্প্রতিক খবর, স্বাস্থ্য সংক্রান্ত টিপস, রেসিপি জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

Advertisement
সৌন্দর্য
Advertisement
 
Listen to the latest songs, only on JioSaavn.com