বসন্তের পঞ্চমী তিথিতে বাগদেবীর আরাধনার প্রস্তুতি তুঙ্গে

মাঘ মাসের পঞ্চম দিনে বসন্ত পঞ্চমী উদযাপিত হয়। পুরান মতে বসন্ত পঞ্চমীতে দেবী সরস্বতীর জন্ম হয়েছিল।

Sushmita Sengupta  |  Updated: February 08, 2019 16:00 IST

Reddit
Basant Panchami 2019: Foods To Celebrate Saraswati Puja 
Highlights
  • পঞ্চমী তিথির সূচনা হচ্ছে ৯ ফেব্রুয়ারি ১২:২৫ থেকে
  • পঞ্চমী তিথি শেষ হচ্ছে ১০ ফেব্রিয়ারি ২:০৮ মিনিটে
  • এ দিনটিকে শ্রীপঞ্চমী বলেও অনেকে উল্লেখ করেন

শীতকাল প্রায় শেষ, এ বার দরজায় কড়া নাড়া দিচ্ছে বসন্ত। এ সময়ে ভারতীয়দের বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মধ্যে ঋতু পরিবর্তনের মরশুমে নানা রকমের উৎসব অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। তেমনই এক বসন্তের উৎসব হলো বসন্ত পঞ্চমী। এ বছর বসন্ত পঞ্চমী উদযাপিত হবে ১০ ফেব্রুয়ারি। বসন্ত পঞ্চমী দিয়েই পাতাঝড়ার মরশুম শেষ হয়। মাঘ মাসের পঞ্চম দিনে বসন্ত পঞ্চমী উদযাপিত হয়। এ সময়ে আবহাওয়া থাকে অনুকূল। তাই মনেও থাকে অপার আনন্দ। আর সেই আনন্দঘন পরিবেশকে প্রতিফলন প্রতিফলিত করে হলুদ রং। সে কারণেই বসন্ত পঞ্চমীতে অনেকেই হলুদ রঙের পোশাক পরে থাকেন। হলুদ রং ইতিবাচকতার সূচনা, নতুন আশা, নতুন কাজের শক্তিকে সূচিত করে। মহিলা এবং শিশুরা উজ্জ্বল হলুদ রঙের শাড়ি বা সালোয়ার পরে সাজগোজ করেন। বহু জায়গায় এ দিন ঘুড়ি ওড়ানোর উৎসব দেখা যায়। কোথাও কোথাও আবার একসঙ্গে বসে লোকগান, নাচগান, যাত্রা প্রভৃতি হয়ে থাকে।

ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে পাতে থাকুক তিসির বীজ

পুরান মতে বসন্ত পঞ্চমীতে দেবী সরস্বতীর জন্ম হয়েছিল। তাই এ দিনটিকে শ্রীপঞ্চমী বলেও অনেকে উল্লেখ করেন। এ দিন দেশজুড়ে বিভিন্ন জায়গায় অনুষ্ঠিত হয় নানা উৎসব।

বসন্ত পঞ্চমী তাৎপর্য:

বাংলা এবং বিহারে এই দিনে বাড়ি বাড়ি সরস্বতী পুজোর চল রয়েছে। সরস্বতী কে বিদ্যার এবং জ্ঞানের দেবী বলে আরাধনা করা হয়।  এই দিনটিকে পূণ্য তিথি হিসাবে বিবেচনা করে যে সব ছোট শিশুরা বিদ্যারম্ভ করতে চলেছে তাদের দেবী স্বরস্বতীর সামনে প্রথম হাতেখড়ি দেওয়া হয়। আর একটু যারা বড়, তারা দেবী সরস্বতীর সামনে নিজেদের বই সাজিয়ে রাখে পুজোর সময়। যাতে বিদ্যাদেবীর আশীর্বাদ বর্ষিত হয়। বাংলার প্রায় প্রতিটি ঘরে এ দিন খিচুড়ি, লাবড়া, পায়েস, বেগুনভাজা, সন্দেশ এবং রাজভোগ তৈরি করা হয়।

সূর্যের আলো আর সুষম খাদ্যই নিশ্চিত করবে সন্তানের সর্বাঙ্গীন বৃদ্ধি ও বিকাশ

পাঞ্জাবে লোকজন এ দিন সকাল থেকেই ঘুড়ি ওড়ানোয় মেতে ওঠেন। মহিলারা নানা রঙিন পোশাকে সাজগোজ করেন। মিঠে চালের মতো পদ রান্না করা হয়। এছাড়াও সর্ষো কি শাক, মক্কি দি রোটি খাওয়ার প্রচলন রয়েছে।

উত্তরপ্রদেশের বেশ কিছু অংশে এ দিন রাধা কৃষ্ণের পুজোর চল রয়েছে। সেখানে দেবতার ভোগ হিসেবে নিবেদিত হয় কেশর ভাত।

 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

A post shared by Swathi Bhat (@platingmypalate) on

এই বছরের পূজোর নির্ঘণ্ট:

সরস্বতী পুজো এবং বসন্ত পঞ্চমী এ বছর তিথি অনুযায়ী ফেব্রুয়ারি মাসের ১০ তারিখে নির্দিষ্ট হয়েছে।

পঞ্চমী তিথির সূচনা হচ্ছে ৯ ফেব্রুয়ারি ১২:২৫ থেকে।

পঞ্চমী তিথি শেষ হচ্ছে ১০ ফেব্রিয়ারি ২:০৮ মিনিটে।

আপনাদের সকলকে আমাদের পক্ষ তরফ থেকে বসন্ত পঞ্চমী ও সরস্বতী পুজোর শুভেচ্ছা।

আরও খবর দেখুন এখানে

Comments

About Sushmita SenguptaSharing a strong penchant for food, Sushmita loves all things good, cheesy and greasy. Her other favourite pastime activities other than discussing food includes, reading, watching movies and binge-watching TV shows.

খাদ্য সংক্রান্ত সাম্প্রতিক খবর, স্বাস্থ্য সংক্রান্ত টিপস, রেসিপি জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

Advertisement
Advertisement