জলখাবারে চা না কফি, কোনটা খাওয়া আপনার শরীরের জন্য ভালো?

সাধারণত দুধ ও চিনি ছাড়াই চা ও কফি খাওয়া বেশি স্বাস্থ্যকর বলে মনে করা হয়। ব্ল্যাক কফিতে আবার কালো চায়ের থেকে বেশি ক্যাফিন আছে।

   |  Updated: March 18, 2019 14:04 IST

Reddit
Benefits of Tea and Coffee- Which Is A Healthier And Better Breakfast Drink?
Highlights
  • সকাল দারুণ এনার্জি নিয়ে শুরু করার জন্য চা বা কফি দুর্দান্ত
  • চা আর কফি দুইয়েরই নিজস্ব গুণ ও অপকারিতা আছে
  • কী ধরণের উপকার চান তার উপর নির্ভর করে বাছুন পানীয়

কোনটা বেশি ভালো, চা নাকি কফি? এই প্রাচীন বিতর্কের বয়স এই দুই বিখ্যাত পানীয়ের ব্যবহারের বয়সের চেয়ে কম নয় মোটেই। এই দুই ক্যাফিনযুক্ত পানীয় বিশ্বে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয় এবং সকালের খাবারের সঙ্গে প্রায় এক অত্যাবশ্যক পানীয় হয়ে উঠেছে। কেউ দুধ চা, কেউ বা লেবু, কেউ বা স্রেফ লিকার চা। একইভাবে কেউ বেশি ঘন করে দুধ দিয়ে কফি, কেউ বা কালো কফি। চা বা কফি প্রেমীদের কাছে এসব আসলে তো কেবল পানীয় নয়, প্রেমও। 

রোজ পাতে একটা করে ডিম কি নিঃশব্দে ডেকে আনছে মৃত্যুকেই!

কিন্তু প্রশ্নটা রয়েই গেল। সকালের খাবারের সঙ্গে চা বেশি ভালো নাকি কফি! আমরা সবাই জানি যে অতিরিক্ত পরিমাণে ক্যাফিন খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ। প্রতিদিন প্রচুর পরিমাণে ক্যাফিন খাওয়া হলে স্নায়বিক উত্তেজনা, উদ্বেগ, পেটের সমস্যা এবং গ্যাস এবং এমনকি অনিয়মিত হৃদস্পন্দন সহ বেশ কয়েকটি সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। বেশিরভাগ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা তাই অতিরিক্ত ক্যাফিনে বাধা দেন। ইউএস ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বা এফডিএস নিরাপদ ক্যাফিন ব্যবহারের সীমা নির্ধারণ করেছে ৪০০ মিলিগ্রাম, যার অর্থ হল প্রায় চার থেকে পাঁচ ছোট কাপে কফি। এবার দেখা যাক এই দুইটি জনপ্রিয় পানীয়ের মধ্যে কোনটি আপনার সকালের জলখাবারের সঙ্গে খাওয়া সবথেকে ভালো।

Newsbeep
kv9lko5g

প্রতিদিন প্রচুর পরিমাণে ক্যাফিন খাওয়া হলে তা অনেক সমস্যার কারণ হতে পারে

চা না কফি: সকালে জলখাবারের সঙ্গে কি খাওয়া উচিত?

চা এবং কফি দুইয়েরই নিজস্ব সুবিধা এবং ত্রুটি রয়েছে। সাধারণত দুধ ও চিনি ছাড়াই চা ও কফি খাওয়া বেশি স্বাস্থ্যকর বলে মনে করা হয়। ব্ল্যাক কফিতে আবার কালো চায়ের থেকে বেশি ক্যাফিন আছে। কালো চায়ে প্রতি আট আউন্সে (আনুমানিক ২৩৬ মিলিমিটার) প্রায় ৫৫ মিলিগ্রাম ক্যাফিন থাকে তবে কালো কফিতে প্রায় দ্বিগুণ পরিমাণ অর্থাৎ প্রতি আট আউন্সে ১০০ মিলিগ্রাম ক্যাফিন থাকে। তাই যদি আপনার ক্যাফিন-সংবেদনশীলতা বা গ্যাস্ট্রিক সমস্যা থাকে তবে কালো কফি পরিবর্তে কালো চা খাওয়া শুরু করুন।

ব্ল্যাক কফি টাইপ 2 ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে, বিপাক এবং শক্তির মাত্রা উন্নত করে ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে এবং এমনকি জ্ঞানের উন্নতি এবং আলঝাইমার্স এবং ডিমেনশিয়ার ঝুঁকিও কমায়। কালো কফি অবশ্য কালো চায়ের থেকে বিপাককে আরও উন্নত করে তুলতে পারে এবং এ কারণে জিম করেন যারা তাঁদের ক্ষেত্রে কালো কফি বেশি ভালো। অন্যদিকে চা সবুজ, কালো, সাদা ও ওলং সহ বিভিন্ন ক্যাফিন সমৃদ্ধ জাতের প্রকারান্তরে পাওয়া যায়। আপনি কোন ক্যাফিনযুক্ত চা পছন্দ করেন তার উপর নির্ভর করছে কোন স্বাস্থ্য উপকারিতা আপনি পাবেন। উদাহরণস্বরূপ, কালো চা রক্তচাপ হ্রাস, রক্তে ​​চিনির মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখা এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়। চা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসমূহে সমৃদ্ধ যা হৃদয়ের কার্যকারিতা রক্ষা করে এবং শরীরের প্রদাহের বিরুদ্ধে লড়াই করে। 

জানেন কি খাবারের পরিবর্তন হলে বদলাতে পারে আপনার ভাষা ও কথা বলাও?

Listen to the latest songs, only on JioSaavn.com

0tmdhif8

সকালের জলখাবারে তাহলে চা না কফি?

পছন্দের পানীয় থেকে আপনি কোন ধরণের উপকার পেতে চান তার উপর ভিত্তি করেই সকালের পানীয় বাছতে হবে আপনাকে। যদি আপনি দ্রুত শক্তি বৃদ্ধি করতে চান তবে কফি ভালো। কিন্তু যদি শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সরবরাহ বাড়াতে চান তবে কালো চা খান। অ্যাসিডিটির প্রবণতার যাঁদের আছে তাঁরা কফি এড়িয়ে চলুন, দুধ চিনি ছাড়া চা খান। বেশি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট চাইলে সবুজ চা এবং সাদা চা খান। অম্লতার সমস্যায় হার্বাল চা খান।

Comments

খাদ্য সংক্রান্ত সাম্প্রতিক খবর, স্বাস্থ্য সংক্রান্ত টিপস, রেসিপি জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

Advertisement
সৌন্দর্য
Advertisement